ঢাকা ০৩:০৩ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::

সোনারগাঁয়ে পরিকল্পিত মামলায় গ্রেফতার আতঙ্কে পালিয়ে বেড়াচ্ছে প্রবাসীর পরিবার!

স্টাফ রিপোর্টার

নারায়নগজ্ঞের সোনারগাঁয়ে এক প্রবাসীর স্ত্রী ও পরিবারকে ব্যাপক নির্যাতনের পর, উল্টো প্রতিপক্ষের পরিকল্পিত হয়রানিমূলক মামলায় গ্রেফতার আতঙ্কে এবং বিভিন্ন হুমকি ধমকিতে বাড়ী ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে বলে জানা গেছে। সোনারগাঁ উপজেলার বৈদ্যের বাজার ইউনিয়ন পরিষদের পানাম গাবতলী এলাকায় এঘটনা ঘটে। প্রবাসী ওসমান গনির স্ত্রী ও পরিবার সূত্র জানা গেছে, দীর্ঘ দিন যাবৎ থেকে প্রতিবেশী পানাম গাবতলীর গ্রামের প্রভাবশালী সাবেক মেম্বার ইসমাইল হোসেন গংরা অব্যাহত নির্যাতন ও অত্যাচারের স্ট্রীম রুলার চালিয়ে আসছে। প্রতিকার চেয়ে প্রবাসীর স্ত্রী মোসাঃ সোনিয়া বেগম (৩৫) সোনারগাঁ থানায় একাধিকবার মামলা করতে গেলে প্রভাবশালীদের বিরুদ্ধে মামলা নেয়নি থানা পুলিশ। অপরদিকে, গত ২৫শে অক্টোবর রাতে প্রভাবশালীদের সাজানো ঘটনায় সোনারগাঁ থানা পুলিশের হয়রানী এবং পানাম গাবতলীর গ্রামের হাজী ফজর আলী প্রধানের ছেলে পরিকল্পিত মামলার বাদী সোলাইমান (৪৮) এর বিভিন্ন হুমকি ধমকিতে প্রবাসীর স্ত্রী মোসাঃ সোনিয়া বেগম ও তার পরিবার চরম নিরাপত্তাহীনতায় জীবন যাপন করছে বলে জানা গেছে।
সূত্র জানায়, প্রভাবশালীদের অত্যাচার এবং নির্যাতনে শিকার হওয়া প্রবাসীর পরিবার একাধিকবার আইনের আশ্রয় চেয়ে কোন প্রতিকার পায়নি। ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত হওয়া প্রবাসীর পরিবারকে উল্টো থানা পুলিশ দিয়ে হয়রানির খবর পাওয়া গেছে। প্রভাবশালীদের সাজানো মিথ্যা অভিযোগের পরিকল্পিত মামলায় গ্রেফতার আতঙ্কে এবং অব্যাহত হুমকি ধমকিতে প্রবাসীর স্ত্রী মোসাঃ সোনিয়া বেগম তার সন্তানদের নিয়ে বাড়ী ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে বলে সূত্র জানিয়েছেন।
বিশ্বস্ত সূত্র জানায়, গত ২৮ শে অক্টোবর সকাল ১০ টার সময় পানাম গাবতলী গ্রামের কাজেম আলী মেম্বারের ছেলে ইসমাইল মেম্বার(৫৪), হাজী ফজর আলী প্রধানের ছেলে সোলাইমান(৪৮), নুর ইসলামের ছেলে মেহেদী হাসান(২৬), দরজ আলী প্রধানের ছেলের নুর ইসলাম(৫৭), ইসমাইল মেম্বারের ছেলে রকি(২৬), ও সোলাইমানের স্ত্রী স্বপ্না(৩৫) সংঘবদ্ধ হয়ে প্রবাসী ওসমান গণির ঘরে প্রবেশ করে তার স্ত্রী সোনিয়া বেগমকে মারধর শুরু করে। একপর্যায়ে সোনিয়া বেগমের ঘরের বিভিন্ন আসবাবপত্র ব্যাপক ভাঙচুর করে নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার লুট করে নিয়ে যায়। তাৎক্ষণিক প্রতিবেশীরা আহত অবস্থায় সোনিয়া বেগমকে সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ নিয়ে চিকিৎসাধীন রাখে। আহত সোনিয়া বেগম কিছুটা সুস্থ হলে উল্লেখিত ঘটনার বিষয়ে সোনারগাঁ থানায় মামলা দায়ের করতে গেলে থানা পুলিশ- তাকে আদালতে মামলা দায়ের করার পরামর্শ দেয়। নিরুপায় হয়ে গত ৮ই অক্টোবর নারায়ণগঞ্জের চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ৬ জনকে বিবাদী করে সোনিয়া বেগম একটি মামলা দায়ের করে।
গত ২রা অক্টোবর রাত অনুমান সাড়ে ১০ টার সময় পূর্বের শত্রুতা জের ধরে ইসমাইল মেম্বারের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক- প্রবাসী আব্দুল গনির ঘরে প্রবেশ করে তার স্ত্রী সোনিয়া বেগমকে বেদম মারধর করে। এসময় প্রাণ রক্ষার ডাক চিৎকারে প্রতিপক্ষরা বিভিন্ন হুমকি ধমকি দিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায়। এদিকে আহত সোনিয়া বেগমকে প্রতিবেশীরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে চিকিৎসা করায়। সোনিয়া বেগম এ ঘটনার বিষয় থানায় অভিযোগ করলে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে তদন্ত করে চলে যায়। কিন্তু থানায় কোন মামলা নেয়নি বলে জানা গেছে।
অপরদিকে, জমি ক্রয় সংক্রান্ত শত্রুতার জের ধরে গত ২৮শে ফেব্রুয়ারি রাত অনুমান ৯ টার সময় উল্লেখিত প্রভাবশালী মহল বিভিন্ন ধরনের উস্কানিমূলক এবং অসৌজন্যমূলক কথাবার্তা অতঃপর মিথ্যা অপবাদের ভয়-ভীতি ও হুমকির কৌশলে- সোনিয়া বেগমের নিকট ৫০ হাজার টাকা দাবি করে। এতে সে টাকা দিতে অস্বীকার করায় রাত অনুমান ৯টার সময় ইসমাইল মেম্বার, নুর ইসলাম, রকি, রেজা, নুরুন্নাহার, শিরিনা, বেদেনা বেগম সংঘবদ্ধ বেআইনী জনতা বদ্ধে হাতে ধারালো অস্ত্রসস্ত্রে সজ্জিত হয়ে, সোনিয়া বেগমের বসত ঘরে প্রবেশ করে অতঃপর বিভিন্ন অকথ্য ভাষায় সোনিয়া বেগমকে গালাগালি করে, প্রতিউত্তর করলে একপর্যায়ে ইসমাইল মেম্বার তাহার হাতে থাকা লোহার রড দিয়ে সোনিয়া বেগমের মাথায় বারি মেরে গুরুতর আহত করে। এ সময় ইসমাইল মেম্বারের নেতৃত্বে অন্যান্যরা নগদ টাকা স্বর্ণালংকার ও মোবাইল ফোন লুট করে নিয়ে যায়। একপর্যায়ে প্রভাবশালী মহল প্রবাসীর সন্তানকে অপহরণ করার হুমকি দিয়ে চলে যায়। এ সময় গুরুতর আহত অবস্থায় স্থানীয় লোকজন সোনিয়াকে দ্রুত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে চিকিৎসা করায়। এ ঘটনার বিষয় সোনিয়া বেগম সোনারগাঁ থানা মামলা করতে গেলে পুলিশ তাহার মামলা নেইনি বলে জানা গেছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

Dainik Renaissance

আমাদের ওয়েসাইটে আপনাকে স্বাগতম। আপনাদের আশে পাশের সকল সংবাদ দিয়ে আমাদের সহযোগীতা করুন
আপডেট সময় ০৯:৪০:৫৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২৩
৭৩ বার পড়া হয়েছে

সোনারগাঁয়ে পরিকল্পিত মামলায় গ্রেফতার আতঙ্কে পালিয়ে বেড়াচ্ছে প্রবাসীর পরিবার!

আপডেট সময় ০৯:৪০:৫৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২৩

নারায়নগজ্ঞের সোনারগাঁয়ে এক প্রবাসীর স্ত্রী ও পরিবারকে ব্যাপক নির্যাতনের পর, উল্টো প্রতিপক্ষের পরিকল্পিত হয়রানিমূলক মামলায় গ্রেফতার আতঙ্কে এবং বিভিন্ন হুমকি ধমকিতে বাড়ী ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে বলে জানা গেছে। সোনারগাঁ উপজেলার বৈদ্যের বাজার ইউনিয়ন পরিষদের পানাম গাবতলী এলাকায় এঘটনা ঘটে। প্রবাসী ওসমান গনির স্ত্রী ও পরিবার সূত্র জানা গেছে, দীর্ঘ দিন যাবৎ থেকে প্রতিবেশী পানাম গাবতলীর গ্রামের প্রভাবশালী সাবেক মেম্বার ইসমাইল হোসেন গংরা অব্যাহত নির্যাতন ও অত্যাচারের স্ট্রীম রুলার চালিয়ে আসছে। প্রতিকার চেয়ে প্রবাসীর স্ত্রী মোসাঃ সোনিয়া বেগম (৩৫) সোনারগাঁ থানায় একাধিকবার মামলা করতে গেলে প্রভাবশালীদের বিরুদ্ধে মামলা নেয়নি থানা পুলিশ। অপরদিকে, গত ২৫শে অক্টোবর রাতে প্রভাবশালীদের সাজানো ঘটনায় সোনারগাঁ থানা পুলিশের হয়রানী এবং পানাম গাবতলীর গ্রামের হাজী ফজর আলী প্রধানের ছেলে পরিকল্পিত মামলার বাদী সোলাইমান (৪৮) এর বিভিন্ন হুমকি ধমকিতে প্রবাসীর স্ত্রী মোসাঃ সোনিয়া বেগম ও তার পরিবার চরম নিরাপত্তাহীনতায় জীবন যাপন করছে বলে জানা গেছে।
সূত্র জানায়, প্রভাবশালীদের অত্যাচার এবং নির্যাতনে শিকার হওয়া প্রবাসীর পরিবার একাধিকবার আইনের আশ্রয় চেয়ে কোন প্রতিকার পায়নি। ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত হওয়া প্রবাসীর পরিবারকে উল্টো থানা পুলিশ দিয়ে হয়রানির খবর পাওয়া গেছে। প্রভাবশালীদের সাজানো মিথ্যা অভিযোগের পরিকল্পিত মামলায় গ্রেফতার আতঙ্কে এবং অব্যাহত হুমকি ধমকিতে প্রবাসীর স্ত্রী মোসাঃ সোনিয়া বেগম তার সন্তানদের নিয়ে বাড়ী ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে বলে সূত্র জানিয়েছেন।
বিশ্বস্ত সূত্র জানায়, গত ২৮ শে অক্টোবর সকাল ১০ টার সময় পানাম গাবতলী গ্রামের কাজেম আলী মেম্বারের ছেলে ইসমাইল মেম্বার(৫৪), হাজী ফজর আলী প্রধানের ছেলে সোলাইমান(৪৮), নুর ইসলামের ছেলে মেহেদী হাসান(২৬), দরজ আলী প্রধানের ছেলের নুর ইসলাম(৫৭), ইসমাইল মেম্বারের ছেলে রকি(২৬), ও সোলাইমানের স্ত্রী স্বপ্না(৩৫) সংঘবদ্ধ হয়ে প্রবাসী ওসমান গণির ঘরে প্রবেশ করে তার স্ত্রী সোনিয়া বেগমকে মারধর শুরু করে। একপর্যায়ে সোনিয়া বেগমের ঘরের বিভিন্ন আসবাবপত্র ব্যাপক ভাঙচুর করে নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার লুট করে নিয়ে যায়। তাৎক্ষণিক প্রতিবেশীরা আহত অবস্থায় সোনিয়া বেগমকে সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ নিয়ে চিকিৎসাধীন রাখে। আহত সোনিয়া বেগম কিছুটা সুস্থ হলে উল্লেখিত ঘটনার বিষয়ে সোনারগাঁ থানায় মামলা দায়ের করতে গেলে থানা পুলিশ- তাকে আদালতে মামলা দায়ের করার পরামর্শ দেয়। নিরুপায় হয়ে গত ৮ই অক্টোবর নারায়ণগঞ্জের চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ৬ জনকে বিবাদী করে সোনিয়া বেগম একটি মামলা দায়ের করে।
গত ২রা অক্টোবর রাত অনুমান সাড়ে ১০ টার সময় পূর্বের শত্রুতা জের ধরে ইসমাইল মেম্বারের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক- প্রবাসী আব্দুল গনির ঘরে প্রবেশ করে তার স্ত্রী সোনিয়া বেগমকে বেদম মারধর করে। এসময় প্রাণ রক্ষার ডাক চিৎকারে প্রতিপক্ষরা বিভিন্ন হুমকি ধমকি দিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায়। এদিকে আহত সোনিয়া বেগমকে প্রতিবেশীরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে চিকিৎসা করায়। সোনিয়া বেগম এ ঘটনার বিষয় থানায় অভিযোগ করলে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে তদন্ত করে চলে যায়। কিন্তু থানায় কোন মামলা নেয়নি বলে জানা গেছে।
অপরদিকে, জমি ক্রয় সংক্রান্ত শত্রুতার জের ধরে গত ২৮শে ফেব্রুয়ারি রাত অনুমান ৯ টার সময় উল্লেখিত প্রভাবশালী মহল বিভিন্ন ধরনের উস্কানিমূলক এবং অসৌজন্যমূলক কথাবার্তা অতঃপর মিথ্যা অপবাদের ভয়-ভীতি ও হুমকির কৌশলে- সোনিয়া বেগমের নিকট ৫০ হাজার টাকা দাবি করে। এতে সে টাকা দিতে অস্বীকার করায় রাত অনুমান ৯টার সময় ইসমাইল মেম্বার, নুর ইসলাম, রকি, রেজা, নুরুন্নাহার, শিরিনা, বেদেনা বেগম সংঘবদ্ধ বেআইনী জনতা বদ্ধে হাতে ধারালো অস্ত্রসস্ত্রে সজ্জিত হয়ে, সোনিয়া বেগমের বসত ঘরে প্রবেশ করে অতঃপর বিভিন্ন অকথ্য ভাষায় সোনিয়া বেগমকে গালাগালি করে, প্রতিউত্তর করলে একপর্যায়ে ইসমাইল মেম্বার তাহার হাতে থাকা লোহার রড দিয়ে সোনিয়া বেগমের মাথায় বারি মেরে গুরুতর আহত করে। এ সময় ইসমাইল মেম্বারের নেতৃত্বে অন্যান্যরা নগদ টাকা স্বর্ণালংকার ও মোবাইল ফোন লুট করে নিয়ে যায়। একপর্যায়ে প্রভাবশালী মহল প্রবাসীর সন্তানকে অপহরণ করার হুমকি দিয়ে চলে যায়। এ সময় গুরুতর আহত অবস্থায় স্থানীয় লোকজন সোনিয়াকে দ্রুত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে চিকিৎসা করায়। এ ঘটনার বিষয় সোনিয়া বেগম সোনারগাঁ থানা মামলা করতে গেলে পুলিশ তাহার মামলা নেইনি বলে জানা গেছে।