ঢাকা ১০:০৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::

সাবেক চেয়ারম্যান নূর-ই হাফজা ও রাশেদ আমানের ষড়যন্ত্রে সোনালী লাইফ

স্টাফ রিপোর্টার:

সাবেক চেয়ারম্যান নূর-ই হাফজা ও বহিষ্কৃত সিইও রাশেদ আমান

২০১৩ সালে নিবন্ধন নিয়ে কার্যক্রম শুরু করা দেশের চতুর্থ প্রজন্মের জীবন বীমা কোম্পানি সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড। ইসলামী শরিয়াহভিত্তিক ইন্স্যুরেন্স কোম্পানিটির বর্তমান মূলধন ও দায়ের পরিমাণ ১ হাজার ৪৮ কোটি টাকা। ৮৬৮ কোটি টাকায় উন্নীত হয়েছে কোম্পানিটির লাইফ ইন্স্যুরেন্স তহবিলের আকার। ২০২৩ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ হাজার ১৭২ কোটি টাকা আয় করেছে কোম্পানিটি। একই সময়ে কোম্পাটির ব্যয় ছিল ৩০৩ কোটি টাকা। সারা দেশে সোনালী লাইফের ২০৫টি শাখা ও প্রায় আট লাখ বীমা গ্রাহক রয়েছে।

কিন্তু কোম্পানির সাবেক চেয়ারম্যান নূর ই হাফজা ও বহিষ্কৃত সিইও রাশেদ বিন আমানের গভীর ষড়যন্ত্রে ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার আশংকায় সোনালী লাইফের প্রায় ৮ লক্ষ গ্রাহক।
অনুসন্ধানে জানা যায়- সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের বরখাস্ত হওয়া মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মীর রাশেদ বিন আমানের বিরুদ্ধে কোম্পানির প্রায় অর্ধশত কোটি টাকা আত্মসাতের প্রমাণ মিলেছিল বেশ আগেই।
জাল সনদ, অর্থ আত্মসাৎ, নারী কেলেংকারীসহ নানা অভিযোগে অভিযুক্ত মীর রাশেদ আমান। তার এসকল অনিয়ম, দুর্নীতি ও কোম্পানির অর্থ নয়-ছয়ে সরাসরি জড়িত ছিলেন সাবেক চেয়ারম্যান নূর-ই হাফজা।
অনুসন্ধানে আরো জানা যায়- আইডিআরএ চেয়ারম্যানের সাথে সোনালীর বহিষ্কৃত সিইও মীর রাশেদ আমানের গভীর সখ্যতা রয়েছে। যার কারনে বীমা নিয়ন্ত্রক সংস্থা গ্রাহকের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ের চেয়ে ব্যক্তি স্বার্থকে সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য দিচ্ছে।
দীর্ঘ ১০ বছরের বেশি সময় ধরে গ্রাহকের আস্থা ও ভালোবাসা সোনালী লাইফ বীমা শিল্পের নেতিবাচক ধারনাকে পাল্টে জীবন বীমায় এক নতুন দিগন্ত উন্মোচন করেছে। কিন্তু সাবেক চেয়ারম্যান ও বহিষ্কৃত সিইও রোষানলে সোনালী লাইফে প্রশাসক নিয়োগ দেয়ায় গ্রাহকদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।
লাইফ ইন্সুইরেন্স জগতে যার কোন অভিজ্ঞতা নেই এমন একজনকে আইডিআরএ কর্তৃক প্রশাসক নিয়োগ বীমা জগতে নানা বির্তকের জন্ম দিয়েছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একটি সুনাম ধন্য জীবন বীমা কোম্পানি মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন- বীমা নিয়ন্ত্রক সংস্থার চেয়ারম্যান একজন বির্তর্কিত ব্যক্তির অভিযোগকে আমলে নিয়ে সোনালী লাইফকে নিয়ে বার বার টানাহেঁচড়া করা সম্পূর্ণ একপেশে।

বিমা মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ ইন্সুরেন্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি (বিআইএ) শেখ কবির হোসেন বলেন, বিমা খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা হলো আইডিআরএ। আর এ খাতে স্বচ্ছতা প্রতিষ্ঠার দায়িত্ব তাদের। এ কারণে তারা যদি মনে করে, কোনো কোম্পানিতে প্রশাসক নিয়োগ দেওয়ার দরকার রয়েছে, সেক্ষেত্রে তারা নিয়োগ দিতে পারে। তবে প্রশাসকের নিয়োগের মতো বড় সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে কোম্পানিকে অনিয়মের ব্যাখ্যা দেওয়ার সুযোগ দিতে হবে। এ ব্যাখ্যা সন্তোষজনক না হলে প্রশাসক দিতে পারে।

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) এস এম ফেরদৌস সোনালীর প্রশাসক

রাশেদ আমানের যত অভিযোগ :

রাশেদ বিন আমান ২০১৫ সালের মার্চে সোনালী লাইফের সিএফও পদে যোগ দিয়েছিলেন। পরে তাকে অতিরিক্ত এমডি পদে পদোন্নতি দেয়া হয়। আইডিআরএ থেকে তাকে সোনালী লাইফের সিওই পদে নিয়োগ দেয়া হয় ২০২২ সালের ২৪ এপ্রিল। নিয়োগের চিঠিতে বলা হয়, ‘আবেদনপত্রের সঙ্গে দাখিলকৃত দলিলাদি ভবিষ্যতে অসত্য বা সঠিক নয় বলে প্রমাণ হলে তার দায়ভার কোম্পানি ও সিইওকে বহন করতে হবে। সেক্ষেত্রে এ নিয়োগ অনুমোদন বাতিল বলে গণ্য হবে।’
গত বছরের শেষের দিকে সিইও রাশেদ বিন আমানের অনিয়ম-দুর্নীতি ও অর্থ আত্মসাতের ঘটনাগুলো সামনে আসতে থাকে। এর পরিপ্রেক্ষিতে চলতি বছরের শুরুতে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে সোনালী লাইফের পরিচালনা পর্ষদ। ওই কমিটির তদন্তে কোম্পানির প্রায় অর্ধশত কোটি টাকা আত্মসাতের প্রমাণ পাওয়া যায়। এর আগে নিরীক্ষাপ্রতিষ্ঠান ‘এমএবিএস অ্যান্ড জে পার্টনারস’-এর মাধ্যমে সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সে নিরীক্ষা চালানো হয়। ওই নিরীক্ষায়ও সিইও রাশেদ বিন আমানের বিরুদ্ধে ৬৩ ধরনের অপরাধ সংঘটনের প্রমাণ পাওয়া গিয়েছিল।
তদন্ত প্রতিবেদনের তথ্যমতে, ২০২২ সালের ২৭ জুন সিইও রাশেদ বিন আমানের অনুকূলে কোম্পানির মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের হিসাব থেকে ১ কোটি ও শাহ্‌জালাল ইসলামী ব্যাংকের হিসাব থেকে ৫০ লাখ টাকা পে অর্ডার করা হয়। যদিও কোম্পানির নথিতে দেখানো হয়, ‘মেয়াদি ঋণ’ ও ‘এসওডি’ দায় পরিশোধের জন্য এ অর্থ ব্যয় হয়েছে। তদন্ত কমিটি পর্যালোচনা করে দেখেছে, উত্তোলনকৃত অর্থ দিয়ে সোনালী লাইফের কোনো ঋণ বা দায় সমন্বয় করা হয়নি। বরং সিইও রাশেদ পুরো অর্থই আত্মসাৎ করেছেন।
বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নামেও ভুয়া বিল তৈরি করে অর্থ স্থানান্তরের প্রমাণ পায় তদন্ত কমিটি। যেমন কোম্পানির নথিতে দেখানো হয়, ২০১৯ সালের ২০ জানুয়ারি মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকে থাকা কোম্পানির হিসাব থেকে র‍্যানকন মোটরসের নামে ৪৭ লাখ টাকা স্থানান্তর করা হয়েছে। যদিও এ টাকা র‍্যানকন মোটরসের হিসাবে না গিয়ে সিইও রাশেদ বিন আমানের ব্যক্তিগত ব্যাংক হিসাবে জমা হয়েছে। আবার ২০১৯ সালের ১১ নভেম্বর কোম্পানির একই ব্যাংক হিসাব থেকে ৪০ লাখ টাকা উত্তোলন করা হয়। এ অর্থের পুরোটাই সিইও আত্মসাৎ করেছেন। কিন্তু কোম্পানির নথিতে ভুয়া একটি খাত দেখানো হয়েছে।
সোনালী লাইফের নিজস্ব আইন অনুযায়ী, কোম্পানির হিসাব বিভাগ থেকে নথিপত্র ছাড়া সর্বোচ্চ ৫ হাজার টাকা নগদ উত্তোলন করার বিধান রয়েছে। যদিও সিইও নিজেই এ আইন ধারাবাহিকভাবে ভঙ্গ করেছেন। কোনো প্রকার নথিপত্র ছাড়াই হিসাব বিভাগ থেকে ২০২০ সালে ৩৯ লাখ ৯০ হাজার, ২০২১ সালে ৬০ লাখ ৯৫ হাজার, ২০২২ সালে ১ কোটি ২১ লাখ ও ২০২৩ সালে ৩ কোটি ৮ লাখ টাকা উত্তোলন করা হয়। নগদ উত্তোলনকৃত এসব অর্থ কোম্পানির হিসাব বইয়ে নথিভুক্তও করা হয়নি।
রাশেদ বিন আমান কোম্পানি থেকে কোনো লভ্যাংশ কিংবা কমিশন নিতে পারবেন না এমন শর্তেই আইডিআরএ থেকে তাকে সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের সিইও পদে নিয়োগ দেয়া হয়। যদিও নিয়ন্ত্রক সংস্থার দেয়া এ শর্তেরও বরখেলাপ করেছেন তিনি। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৯ সালের ১১ নভেম্বর কোম্পানিটির ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের হিসাব থেকে ৩২ লাখ ৫০ হাজার টাকা নগদে উত্তোলন করা হয়। কোম্পানির নথিতে এ অর্থ ব্যয়ের খাত দেখানো হয়েছে ‘রাশেদ বিন আমানের বার্ষিক প্রণোদনা পরিশোধ’। আবার ২০২০ সালের ১৩ জানুয়ারি একই ব্যাংকের হিসাব থেকে ১২ লাখ ৫০ হাজার টাকা উত্তোলন করা হয়। কোম্পানির নথিতে এ অর্থ ব্যয়ের খাত দেখানো হয় ‘নির্বাহীর বার্ষিক লক্ষ্য পূরণ প্রণোদনা পরিশোধ’।
পুঁজিবাজার থেকে সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের শেয়ার কেনার ক্ষেত্রেও প্রতারণার আশ্রয় নিয়েছেন রাশেদ বিন আমান। প্রাপ্ত নথিপত্র অনুযায়ী, ২০২২ সালের ২৯ জুন কোম্পানির টাকায় সোহানা আক্তার নামে কানাডা প্রবাসী এক নারীর নামে ৩০ লাখ টাকার শেয়ার কেনা হয়। ওই নারী রাশেদ বিন আমানের চাচাতো ভাইয়ের স্ত্রী। একইভাবে সিইওর অন্য স্বজনের নামেও শেয়ার কেনা হয়। প্রতারণামূলক বেনামি শেয়ার কেনায় সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৪ কোটি ৯৫ লাখ টাকা ব্যয় করা হয়েছে বলে তদন্ত কমিটি প্রমাণ পেয়েছে।
আইডিআরএ থেকে অনুমোদিত বেতন-ভাতা অনুযায়ী, সিইও হিসেবে রাশেদ বিন আমান ২০২০-২৩ চার বছরে ঈদ বোনাসসহ ১ কোটি ৭৮ লাখ ৬১ হাজার ৯৮০ টাকা বেতন-ভাতা প্রাপ্য হন। যদিও তিনি এ চার বছরে প্রণোদনাসহ সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স থেকে ৪ কোটি ৯ লাখ ৪০ হাজার টাকা উত্তোলন করেছেন।
ভুয়া নথিপত্র বানিয়েও সোনালী লাইফের হিসাব বিভাগ থেকে ৬ কোটি ৭০ লাখ টাকা তুলে নেন রাশেদ বিন আমান। এ টাকা গ্যালাক্সি হলিডেজ লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠানকে পরিশোধ দেখানো হয়। যদিও গ্যালাক্সি হলিডেজের নীতি অনুযায়ী, প্রতিষ্ঠানটি নগদে কোনো অর্থ গ্রহণ করে না। তদন্ত কমিটি মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকে থাকা রাশেদ বিন আমানের ব্যক্তিগত একটি হিসাব বিবরণী উত্তোলন করে। ওই ব্যাংক হিসাবে ২০১৮ সালে ৬১ লাখ ৯০ হাজার ৩৭১, ২০১৯ সালে ৬২ লাখ ৬৮ হাজার ৬৯৮, ২০২০ সালে ৯৮ লাখ ৮০ হাজার ৭০০, ২০২১ সালে ৮৬ লাখ ৮২ হাজার ৬১৪, ২০২২ সালে ৪ কোটি ১৬ লাখ ৪৮ হাজার ৫৫৬ ও ২০২৩ সালে ২ কোটি ১৩ লাখ ৫০ হাজার ৫১২ টাকা লেনদেনের তথ্য পাওয়া গেছে। যদিও এ ব্যাংক হিসাবটি কখনই রাশেদ বিন আমানের বেতন-ভাতা জমার কাজে ব্যবহার হয়নি। অর্থাৎ শুধু এই একটি হিসাবেই মাত্র ছয় বছরে সাড়ে ৮ কোটি টাকার বেশি লেনদেন করেছেন তিনি।
সিইও পদে থাকা অবস্থায় ফাতেমা তামান্না সুইটি নামে কোম্পানির একজন সাধারণ কর্মচারীর সঙ্গে পরকীয়ায় জড়ান রাশেদ বিন আমান। পরে ওই কর্মচারীকে বিয়েও করেন। বিষয়টিকে সিইওর নৈতিক স্খলনের পাশাপাশি কোম্পানির আইন ভঙ্গ হিসেবে দেখছে তদন্ত কমিটি। কারণ সিওই হিসেবে অধীনস্থ কর্মচারীর সঙ্গে এ ধরনের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়া সোনালী লাইফের মানবসম্পদ রীতিনীতির বিরুদ্ধ।
অনুসন্ধানে জিানা যায়, ‘কোম্পানি থেকে আত্মসাৎকৃত অর্থে রাশেদ বিন আমান বিলাসী জীবন যাপন করেছেন। অভিজাত একটি আবাসন কোম্পানি থেকে গুলশানে সাত হাজার বর্গফুটের অ্যাপার্টমেন্ট কেনেন। এটি কিনতে তার ব্যয় হয়েছে ২২ কোটি টাকা। ৩ কোটি ৪৫ লাখ টাকা দামের পোর্শে টাইকান ও ২ কোটি ৭৫ লাখ টাকায় মার্সিডিজ জিএলই কিনেছেন। আবার কোম্পানি থেকে আত্মসাৎকৃত বিপুল অর্থ অস্ট্রেলিয়ায় পাচারও করেছেন।’

বহিষ্কৃত সিইও রাশেদ আমান আইডিআরএ, বাংলাদেশ ব্যাংক, বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনসহ (বিএসইসি) বিভিন্ন সংস্থার কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছিলেন রাশেদ বিন আমান। সে অভিযোগপত্রে তিনি সোনালী লাইফের তৎকালীন চেয়ারম্যান মোস্তফা গোলাম কুদ্দুস ও তার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে অর্থ তছরুপের অভিযোগ তোলেন। শিল্প উদ্যোক্তা মোস্তফা গোলাম কুদ্দুসের মেয়ের জামাই ছিলেন রাশেদ বিন আমান।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

Dainik Renaissance

আমাদের ওয়েসাইটে আপনাকে স্বাগতম। আপনাদের আশে পাশের সকল সংবাদ দিয়ে আমাদের সহযোগীতা করুন
আপডেট সময় ০১:১২:৫৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১০ মে ২০২৪
২৬৬ বার পড়া হয়েছে

সাবেক চেয়ারম্যান নূর-ই হাফজা ও রাশেদ আমানের ষড়যন্ত্রে সোনালী লাইফ

আপডেট সময় ০১:১২:৫৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১০ মে ২০২৪

২০১৩ সালে নিবন্ধন নিয়ে কার্যক্রম শুরু করা দেশের চতুর্থ প্রজন্মের জীবন বীমা কোম্পানি সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড। ইসলামী শরিয়াহভিত্তিক ইন্স্যুরেন্স কোম্পানিটির বর্তমান মূলধন ও দায়ের পরিমাণ ১ হাজার ৪৮ কোটি টাকা। ৮৬৮ কোটি টাকায় উন্নীত হয়েছে কোম্পানিটির লাইফ ইন্স্যুরেন্স তহবিলের আকার। ২০২৩ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ হাজার ১৭২ কোটি টাকা আয় করেছে কোম্পানিটি। একই সময়ে কোম্পাটির ব্যয় ছিল ৩০৩ কোটি টাকা। সারা দেশে সোনালী লাইফের ২০৫টি শাখা ও প্রায় আট লাখ বীমা গ্রাহক রয়েছে।

কিন্তু কোম্পানির সাবেক চেয়ারম্যান নূর ই হাফজা ও বহিষ্কৃত সিইও রাশেদ বিন আমানের গভীর ষড়যন্ত্রে ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার আশংকায় সোনালী লাইফের প্রায় ৮ লক্ষ গ্রাহক।
অনুসন্ধানে জানা যায়- সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের বরখাস্ত হওয়া মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মীর রাশেদ বিন আমানের বিরুদ্ধে কোম্পানির প্রায় অর্ধশত কোটি টাকা আত্মসাতের প্রমাণ মিলেছিল বেশ আগেই।
জাল সনদ, অর্থ আত্মসাৎ, নারী কেলেংকারীসহ নানা অভিযোগে অভিযুক্ত মীর রাশেদ আমান। তার এসকল অনিয়ম, দুর্নীতি ও কোম্পানির অর্থ নয়-ছয়ে সরাসরি জড়িত ছিলেন সাবেক চেয়ারম্যান নূর-ই হাফজা।
অনুসন্ধানে আরো জানা যায়- আইডিআরএ চেয়ারম্যানের সাথে সোনালীর বহিষ্কৃত সিইও মীর রাশেদ আমানের গভীর সখ্যতা রয়েছে। যার কারনে বীমা নিয়ন্ত্রক সংস্থা গ্রাহকের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ের চেয়ে ব্যক্তি স্বার্থকে সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য দিচ্ছে।
দীর্ঘ ১০ বছরের বেশি সময় ধরে গ্রাহকের আস্থা ও ভালোবাসা সোনালী লাইফ বীমা শিল্পের নেতিবাচক ধারনাকে পাল্টে জীবন বীমায় এক নতুন দিগন্ত উন্মোচন করেছে। কিন্তু সাবেক চেয়ারম্যান ও বহিষ্কৃত সিইও রোষানলে সোনালী লাইফে প্রশাসক নিয়োগ দেয়ায় গ্রাহকদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।
লাইফ ইন্সুইরেন্স জগতে যার কোন অভিজ্ঞতা নেই এমন একজনকে আইডিআরএ কর্তৃক প্রশাসক নিয়োগ বীমা জগতে নানা বির্তকের জন্ম দিয়েছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একটি সুনাম ধন্য জীবন বীমা কোম্পানি মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন- বীমা নিয়ন্ত্রক সংস্থার চেয়ারম্যান একজন বির্তর্কিত ব্যক্তির অভিযোগকে আমলে নিয়ে সোনালী লাইফকে নিয়ে বার বার টানাহেঁচড়া করা সম্পূর্ণ একপেশে।

বিমা মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ ইন্সুরেন্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি (বিআইএ) শেখ কবির হোসেন বলেন, বিমা খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা হলো আইডিআরএ। আর এ খাতে স্বচ্ছতা প্রতিষ্ঠার দায়িত্ব তাদের। এ কারণে তারা যদি মনে করে, কোনো কোম্পানিতে প্রশাসক নিয়োগ দেওয়ার দরকার রয়েছে, সেক্ষেত্রে তারা নিয়োগ দিতে পারে। তবে প্রশাসকের নিয়োগের মতো বড় সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে কোম্পানিকে অনিয়মের ব্যাখ্যা দেওয়ার সুযোগ দিতে হবে। এ ব্যাখ্যা সন্তোষজনক না হলে প্রশাসক দিতে পারে।

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) এস এম ফেরদৌস সোনালীর প্রশাসক

রাশেদ আমানের যত অভিযোগ :

রাশেদ বিন আমান ২০১৫ সালের মার্চে সোনালী লাইফের সিএফও পদে যোগ দিয়েছিলেন। পরে তাকে অতিরিক্ত এমডি পদে পদোন্নতি দেয়া হয়। আইডিআরএ থেকে তাকে সোনালী লাইফের সিওই পদে নিয়োগ দেয়া হয় ২০২২ সালের ২৪ এপ্রিল। নিয়োগের চিঠিতে বলা হয়, ‘আবেদনপত্রের সঙ্গে দাখিলকৃত দলিলাদি ভবিষ্যতে অসত্য বা সঠিক নয় বলে প্রমাণ হলে তার দায়ভার কোম্পানি ও সিইওকে বহন করতে হবে। সেক্ষেত্রে এ নিয়োগ অনুমোদন বাতিল বলে গণ্য হবে।’
গত বছরের শেষের দিকে সিইও রাশেদ বিন আমানের অনিয়ম-দুর্নীতি ও অর্থ আত্মসাতের ঘটনাগুলো সামনে আসতে থাকে। এর পরিপ্রেক্ষিতে চলতি বছরের শুরুতে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে সোনালী লাইফের পরিচালনা পর্ষদ। ওই কমিটির তদন্তে কোম্পানির প্রায় অর্ধশত কোটি টাকা আত্মসাতের প্রমাণ পাওয়া যায়। এর আগে নিরীক্ষাপ্রতিষ্ঠান ‘এমএবিএস অ্যান্ড জে পার্টনারস’-এর মাধ্যমে সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সে নিরীক্ষা চালানো হয়। ওই নিরীক্ষায়ও সিইও রাশেদ বিন আমানের বিরুদ্ধে ৬৩ ধরনের অপরাধ সংঘটনের প্রমাণ পাওয়া গিয়েছিল।
তদন্ত প্রতিবেদনের তথ্যমতে, ২০২২ সালের ২৭ জুন সিইও রাশেদ বিন আমানের অনুকূলে কোম্পানির মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের হিসাব থেকে ১ কোটি ও শাহ্‌জালাল ইসলামী ব্যাংকের হিসাব থেকে ৫০ লাখ টাকা পে অর্ডার করা হয়। যদিও কোম্পানির নথিতে দেখানো হয়, ‘মেয়াদি ঋণ’ ও ‘এসওডি’ দায় পরিশোধের জন্য এ অর্থ ব্যয় হয়েছে। তদন্ত কমিটি পর্যালোচনা করে দেখেছে, উত্তোলনকৃত অর্থ দিয়ে সোনালী লাইফের কোনো ঋণ বা দায় সমন্বয় করা হয়নি। বরং সিইও রাশেদ পুরো অর্থই আত্মসাৎ করেছেন।
বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নামেও ভুয়া বিল তৈরি করে অর্থ স্থানান্তরের প্রমাণ পায় তদন্ত কমিটি। যেমন কোম্পানির নথিতে দেখানো হয়, ২০১৯ সালের ২০ জানুয়ারি মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকে থাকা কোম্পানির হিসাব থেকে র‍্যানকন মোটরসের নামে ৪৭ লাখ টাকা স্থানান্তর করা হয়েছে। যদিও এ টাকা র‍্যানকন মোটরসের হিসাবে না গিয়ে সিইও রাশেদ বিন আমানের ব্যক্তিগত ব্যাংক হিসাবে জমা হয়েছে। আবার ২০১৯ সালের ১১ নভেম্বর কোম্পানির একই ব্যাংক হিসাব থেকে ৪০ লাখ টাকা উত্তোলন করা হয়। এ অর্থের পুরোটাই সিইও আত্মসাৎ করেছেন। কিন্তু কোম্পানির নথিতে ভুয়া একটি খাত দেখানো হয়েছে।
সোনালী লাইফের নিজস্ব আইন অনুযায়ী, কোম্পানির হিসাব বিভাগ থেকে নথিপত্র ছাড়া সর্বোচ্চ ৫ হাজার টাকা নগদ উত্তোলন করার বিধান রয়েছে। যদিও সিইও নিজেই এ আইন ধারাবাহিকভাবে ভঙ্গ করেছেন। কোনো প্রকার নথিপত্র ছাড়াই হিসাব বিভাগ থেকে ২০২০ সালে ৩৯ লাখ ৯০ হাজার, ২০২১ সালে ৬০ লাখ ৯৫ হাজার, ২০২২ সালে ১ কোটি ২১ লাখ ও ২০২৩ সালে ৩ কোটি ৮ লাখ টাকা উত্তোলন করা হয়। নগদ উত্তোলনকৃত এসব অর্থ কোম্পানির হিসাব বইয়ে নথিভুক্তও করা হয়নি।
রাশেদ বিন আমান কোম্পানি থেকে কোনো লভ্যাংশ কিংবা কমিশন নিতে পারবেন না এমন শর্তেই আইডিআরএ থেকে তাকে সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের সিইও পদে নিয়োগ দেয়া হয়। যদিও নিয়ন্ত্রক সংস্থার দেয়া এ শর্তেরও বরখেলাপ করেছেন তিনি। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৯ সালের ১১ নভেম্বর কোম্পানিটির ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের হিসাব থেকে ৩২ লাখ ৫০ হাজার টাকা নগদে উত্তোলন করা হয়। কোম্পানির নথিতে এ অর্থ ব্যয়ের খাত দেখানো হয়েছে ‘রাশেদ বিন আমানের বার্ষিক প্রণোদনা পরিশোধ’। আবার ২০২০ সালের ১৩ জানুয়ারি একই ব্যাংকের হিসাব থেকে ১২ লাখ ৫০ হাজার টাকা উত্তোলন করা হয়। কোম্পানির নথিতে এ অর্থ ব্যয়ের খাত দেখানো হয় ‘নির্বাহীর বার্ষিক লক্ষ্য পূরণ প্রণোদনা পরিশোধ’।
পুঁজিবাজার থেকে সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের শেয়ার কেনার ক্ষেত্রেও প্রতারণার আশ্রয় নিয়েছেন রাশেদ বিন আমান। প্রাপ্ত নথিপত্র অনুযায়ী, ২০২২ সালের ২৯ জুন কোম্পানির টাকায় সোহানা আক্তার নামে কানাডা প্রবাসী এক নারীর নামে ৩০ লাখ টাকার শেয়ার কেনা হয়। ওই নারী রাশেদ বিন আমানের চাচাতো ভাইয়ের স্ত্রী। একইভাবে সিইওর অন্য স্বজনের নামেও শেয়ার কেনা হয়। প্রতারণামূলক বেনামি শেয়ার কেনায় সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৪ কোটি ৯৫ লাখ টাকা ব্যয় করা হয়েছে বলে তদন্ত কমিটি প্রমাণ পেয়েছে।
আইডিআরএ থেকে অনুমোদিত বেতন-ভাতা অনুযায়ী, সিইও হিসেবে রাশেদ বিন আমান ২০২০-২৩ চার বছরে ঈদ বোনাসসহ ১ কোটি ৭৮ লাখ ৬১ হাজার ৯৮০ টাকা বেতন-ভাতা প্রাপ্য হন। যদিও তিনি এ চার বছরে প্রণোদনাসহ সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স থেকে ৪ কোটি ৯ লাখ ৪০ হাজার টাকা উত্তোলন করেছেন।
ভুয়া নথিপত্র বানিয়েও সোনালী লাইফের হিসাব বিভাগ থেকে ৬ কোটি ৭০ লাখ টাকা তুলে নেন রাশেদ বিন আমান। এ টাকা গ্যালাক্সি হলিডেজ লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠানকে পরিশোধ দেখানো হয়। যদিও গ্যালাক্সি হলিডেজের নীতি অনুযায়ী, প্রতিষ্ঠানটি নগদে কোনো অর্থ গ্রহণ করে না। তদন্ত কমিটি মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকে থাকা রাশেদ বিন আমানের ব্যক্তিগত একটি হিসাব বিবরণী উত্তোলন করে। ওই ব্যাংক হিসাবে ২০১৮ সালে ৬১ লাখ ৯০ হাজার ৩৭১, ২০১৯ সালে ৬২ লাখ ৬৮ হাজার ৬৯৮, ২০২০ সালে ৯৮ লাখ ৮০ হাজার ৭০০, ২০২১ সালে ৮৬ লাখ ৮২ হাজার ৬১৪, ২০২২ সালে ৪ কোটি ১৬ লাখ ৪৮ হাজার ৫৫৬ ও ২০২৩ সালে ২ কোটি ১৩ লাখ ৫০ হাজার ৫১২ টাকা লেনদেনের তথ্য পাওয়া গেছে। যদিও এ ব্যাংক হিসাবটি কখনই রাশেদ বিন আমানের বেতন-ভাতা জমার কাজে ব্যবহার হয়নি। অর্থাৎ শুধু এই একটি হিসাবেই মাত্র ছয় বছরে সাড়ে ৮ কোটি টাকার বেশি লেনদেন করেছেন তিনি।
সিইও পদে থাকা অবস্থায় ফাতেমা তামান্না সুইটি নামে কোম্পানির একজন সাধারণ কর্মচারীর সঙ্গে পরকীয়ায় জড়ান রাশেদ বিন আমান। পরে ওই কর্মচারীকে বিয়েও করেন। বিষয়টিকে সিইওর নৈতিক স্খলনের পাশাপাশি কোম্পানির আইন ভঙ্গ হিসেবে দেখছে তদন্ত কমিটি। কারণ সিওই হিসেবে অধীনস্থ কর্মচারীর সঙ্গে এ ধরনের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়া সোনালী লাইফের মানবসম্পদ রীতিনীতির বিরুদ্ধ।
অনুসন্ধানে জিানা যায়, ‘কোম্পানি থেকে আত্মসাৎকৃত অর্থে রাশেদ বিন আমান বিলাসী জীবন যাপন করেছেন। অভিজাত একটি আবাসন কোম্পানি থেকে গুলশানে সাত হাজার বর্গফুটের অ্যাপার্টমেন্ট কেনেন। এটি কিনতে তার ব্যয় হয়েছে ২২ কোটি টাকা। ৩ কোটি ৪৫ লাখ টাকা দামের পোর্শে টাইকান ও ২ কোটি ৭৫ লাখ টাকায় মার্সিডিজ জিএলই কিনেছেন। আবার কোম্পানি থেকে আত্মসাৎকৃত বিপুল অর্থ অস্ট্রেলিয়ায় পাচারও করেছেন।’

বহিষ্কৃত সিইও রাশেদ আমান আইডিআরএ, বাংলাদেশ ব্যাংক, বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনসহ (বিএসইসি) বিভিন্ন সংস্থার কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছিলেন রাশেদ বিন আমান। সে অভিযোগপত্রে তিনি সোনালী লাইফের তৎকালীন চেয়ারম্যান মোস্তফা গোলাম কুদ্দুস ও তার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে অর্থ তছরুপের অভিযোগ তোলেন। শিল্প উদ্যোক্তা মোস্তফা গোলাম কুদ্দুসের মেয়ের জামাই ছিলেন রাশেদ বিন আমান।