ঢাকা ০৪:৩৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

যুবলীগ নেত্রীর বাড়ি দখল, জেলা পরিষদ সদস্য ও ওসির বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন

বিশেষ প্রতিবেদক

বাগেরহাট জেলা পরিষদ সদস্য আব্দুল জলিল ও মোংলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শামসুদ্দিনের বিরুদ্ধে বাড়ি দখল করে নেওয়ার ও মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে দেওয়ার অভিযোগ করেছেন মোংলা পোর্ট পৌর যুবলীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক শারমিন আক্তার জুঁই।

জাতীয় প্রেস ক্লাবে বুধবার সকালে সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন মেরিন ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল গফুর ও যুবলীগ নেত্রী জুঁই দম্পতি।

লিখিত বক্তব্যে ওই দম্পতি জানান, বাগেরহাট জেলা পরিষদ সদস্য আব্দুল জলিল ও থানার ওসি শামসুদ্দিনের যোগসাজশে শাহনাজ বেগম শাহানা নামের এক নারীকে দিয়ে মোংলা পোর্টের শামসুর রহমান রোডে তিন কাঠা জমির ওপর ৪০ লাখ টাকা মূল্যের বাড়ি দখলে নিয়েছে। এর আগে গত ৬ মে ওই নারী তার লোকজন নিয়ে আমাদের ওপর হামলা চালালে আমরা থানায় মামলা করি। মামলা করার পরও পুলিশ তাদের আটক করেনি। উল্টো ওই ঘটনার এক সপ্তাহ পরে বিবাদীকে দিয়ে আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা করে হয়রানি করছে।

বাগেরহাটের পুলিশ সুপার কেএম আরিফুল হক মোবাইল ফোনে যুগান্তরকে বলেন, যে কেউ অভিযোগ করতেই পারে। অভিযোগ করলেই তো আর সত্য হয় না। আমরা তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

Dainik Renaissance

আমাদের ওয়েসাইটে আপনাকে স্বাগতম। আপনাদের আশে পাশের সকল সংবাদ দিয়ে আমাদের সহযোগীতা করুন
আপডেট সময় ১২:১৭:৪৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১০ অগাস্ট ২০২৩
৬৯ বার পড়া হয়েছে

যুবলীগ নেত্রীর বাড়ি দখল, জেলা পরিষদ সদস্য ও ওসির বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন

আপডেট সময় ১২:১৭:৪৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১০ অগাস্ট ২০২৩

বাগেরহাট জেলা পরিষদ সদস্য আব্দুল জলিল ও মোংলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শামসুদ্দিনের বিরুদ্ধে বাড়ি দখল করে নেওয়ার ও মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে দেওয়ার অভিযোগ করেছেন মোংলা পোর্ট পৌর যুবলীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক শারমিন আক্তার জুঁই।

জাতীয় প্রেস ক্লাবে বুধবার সকালে সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন মেরিন ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল গফুর ও যুবলীগ নেত্রী জুঁই দম্পতি।

লিখিত বক্তব্যে ওই দম্পতি জানান, বাগেরহাট জেলা পরিষদ সদস্য আব্দুল জলিল ও থানার ওসি শামসুদ্দিনের যোগসাজশে শাহনাজ বেগম শাহানা নামের এক নারীকে দিয়ে মোংলা পোর্টের শামসুর রহমান রোডে তিন কাঠা জমির ওপর ৪০ লাখ টাকা মূল্যের বাড়ি দখলে নিয়েছে। এর আগে গত ৬ মে ওই নারী তার লোকজন নিয়ে আমাদের ওপর হামলা চালালে আমরা থানায় মামলা করি। মামলা করার পরও পুলিশ তাদের আটক করেনি। উল্টো ওই ঘটনার এক সপ্তাহ পরে বিবাদীকে দিয়ে আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা করে হয়রানি করছে।

বাগেরহাটের পুলিশ সুপার কেএম আরিফুল হক মোবাইল ফোনে যুগান্তরকে বলেন, যে কেউ অভিযোগ করতেই পারে। অভিযোগ করলেই তো আর সত্য হয় না। আমরা তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।