ঢাকা ০৮:৪০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::

পরীমণির ছেলেকে নিয়ে পোস্ট, নির্মাতার সংসারে তুলকালাম!

বিনোদন প্রতিবেদক

জাহারা মিতু, রাজ্য ও দীপংকর দীপন

একসঙ্গে করা হয়নি কাজ। প্রেমের গুঞ্জন নেই। নেই কাজের ক্ষেত্রেও কোনো সক্ষতা। অথচ নায়িকা জাহারা মিতুর এক পোস্টেই নাকি নির্মাতা দীপংকর দীপনের ব্যক্তিজীবনে উঠলো ঝড়!

মূলত কদিন আগে একটি অনুষ্ঠানে পরীমণির ছেলে রাজ্যকে কোলে নিয়ে একটি ছবি তোলেন দীপংকর দীপন। সেই ছবিতে তার পাশে ছিলেন নায়িকা জাহারা মিতু। সেই ছবি নিজের সোশ্যাল হ্যান্ডেলে পোস্ট করেন মিতু। ক্যাপশনে লেখেন, ‘আমাদের একটা পরীর বাচ্চা আছে।’

পরক্ষণেই দীপন টের পেলেন, নেটিজেনদের অনেকে তার ও মিতুর মধ্যে ‘বিশেষ সম্পর্ক’র অস্তিত্ব খুঁজে বেড়াচ্ছে। সেটার ঝড়ো হাওয়া লেগেছে দীপনের পারিবারিক জীবনেও। তাই বুধবার (১৬ আগস্ট) রাত পৌনে তিনটার দিকে মিতুর পোস্টের স্ক্রিনশট নিয়ে লম্বা স্ট্যাটাস দেন নির্মাতা।

জাহারা মিতুকে উদ্দেশ্য করে দীপন বলেছেন, এটা কী পোস্ট ভাই? এই পোস্টের ছবি ও লেখা মিলে কী দাঁড়ায়, সেটা কি তুমি বোঝো না মিতু? কমেন্ট দেখো, যা তুমি ডিলিটও করোনি। আর এদিকে অন্যদের বোঝাতে বোঝাতে আমার জীবন শেষ যে, জাহারা মিতুর সঙ্গে আমার কোনও (বিশেষ) সম্পর্ক নেই; বা দহরম-মহরম সম্পর্কও নেই, বরং খুব ফরমাল সম্পর্ক। একবার দুবার দেখা হয়েছে, তাও কোনও অনুষ্ঠানেই। অনেকে বিশ্বাস করে, অনেকেই করে না; খিক খিক করে হেসে বলে, ‘ভাই ছবি ও পোস্টের ভাষা তো অন্য ইঙ্গিত দেয়!’ আর পারিবারিক অশান্তির কথা তো না-ই বললাম, সেটা সবাই বুঝবে।”

 

দীর্ঘ পোস্টে দীপন এটুকু বোঝাতে চেয়েছেন, মিতুর সঙ্গে তার কোনও সম্পর্ক নেই। দীপনের পোস্টে মন্তব্য করে মিতু বলেছেন, ‘রাজ্য আমাদের পুরো বাংলাদেশের। হয়তো অর্থটাই ভুল বুঝেছেন। ব্যক্তিগত জীবনে কী প্যারায় আছেন, তা তো আমরা জানি না। তবে আমার এই পোস্টে আমার অজান্তে বৌদি কোনও কষ্ট পেয়ে থাকলে আমি দুঃখিত। আর স্ক্রিনশটের প্যাঁচের খেলা থেকে অনেক আগেই বের হয়ে এসেছি। এরা পারেই প্যাঁচ লাগাতে। এখন হয়তো দু-চারটা নিউজ হবে আবোল-তাবোল। এইতো।’

বুধবার (১৬ আগস্ট) দুপুর আড়াইটায় সোশ্যাল হ্যান্ডেলে সংযুক্তা বললেন, ‘নির্মাতা দীপংকর দীপন কার সঙ্গে মেশে, কী খায়, কী পরে, কোন দেশে যায়, আর কী কী করে বেড়ায়, আমি সেটা জানি না। আর কেন জানি না, এটা আমাদের, মানে আমার আর দীপনের একান্তই ব্যক্তিগত ব্যাপার। কিন্তু আমাকে নিজেদের দোষ ঢাকতে বলির পাঁঠা বানাবেন না। জাহারা মিতুকে আমি চিনিও না। কিন্তু তাকে আর দীপনকে নিয়ে কী হয়েছে, আমি সত্যিই জানতাম না। আমাকে দুজন সাংবাদিক জানিয়েছিলেন, আমি পাত্তাও দেইনি। প্রতিটি মানুষের ব্যক্তিগত জীবন আছে। দীপনেরও আছে, আমারও আছে। তাই এগুলো নিয়ে আমাদের বহু বহু দিন কোনও মাথাব্যথা নেই।’

দীপনের পোস্ট নিয়ে সংযুক্তার মন্তব্য এরকম, “ওই মেয়েকে (জাহারা মিতু) নিয়ে দীপনের স্ট্যাটাস দেখে বুঝলাম; তাকেও আশপাশের লোকজন অথবা তার এখনকার ‘একান্ত’ কেউ চাপ দিয়েছে আর তাই সে স্ট্যাটাস দিয়ে তার দোষ ফুরিয়েছেন। বলির বকরা বানিয়েছেন আমাকে। ঘর আর পারিবারিক জীবনের কথা বলে নিজেকে বিপদের বাইরে ভালো মানুষ সাজিয়ে রাখলেন; আরেকবার বিক্রি করলেন আমাকে!’’

তবে দীপংকর-সংযুক্তার এই ভার্চুয়াল পারিবারিক যুদ্ধে আর যুক্ত হননি জাহারা। এমনকি তার পোস্টটিও করে দিয়েছেন অনলি মি!

উল্টো দীপনকে লক্ষ্য করে বললেন, ‘আপনাকে ছবি থেকে ক্রপ করে দিলে ব্যাপারটা আপনার জন্য মারাত্মক অসম্মানের হতো। যেটা আমি চাইনি। আপনি আমার কাছে সম্মানীয়। তাই এখনও আপনাকে ক্রপ করে ফেলে না দিয়ে বরং অনলি মি করলাম।’

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

Dainik Renaissance

আমাদের ওয়েসাইটে আপনাকে স্বাগতম। আপনাদের আশে পাশের সকল সংবাদ দিয়ে আমাদের সহযোগীতা করুন
আপডেট সময় ০৫:৫৪:২১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৭ অগাস্ট ২০২৩
৩৩ বার পড়া হয়েছে

পরীমণির ছেলেকে নিয়ে পোস্ট, নির্মাতার সংসারে তুলকালাম!

আপডেট সময় ০৫:৫৪:২১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৭ অগাস্ট ২০২৩

একসঙ্গে করা হয়নি কাজ। প্রেমের গুঞ্জন নেই। নেই কাজের ক্ষেত্রেও কোনো সক্ষতা। অথচ নায়িকা জাহারা মিতুর এক পোস্টেই নাকি নির্মাতা দীপংকর দীপনের ব্যক্তিজীবনে উঠলো ঝড়!

মূলত কদিন আগে একটি অনুষ্ঠানে পরীমণির ছেলে রাজ্যকে কোলে নিয়ে একটি ছবি তোলেন দীপংকর দীপন। সেই ছবিতে তার পাশে ছিলেন নায়িকা জাহারা মিতু। সেই ছবি নিজের সোশ্যাল হ্যান্ডেলে পোস্ট করেন মিতু। ক্যাপশনে লেখেন, ‘আমাদের একটা পরীর বাচ্চা আছে।’

পরক্ষণেই দীপন টের পেলেন, নেটিজেনদের অনেকে তার ও মিতুর মধ্যে ‘বিশেষ সম্পর্ক’র অস্তিত্ব খুঁজে বেড়াচ্ছে। সেটার ঝড়ো হাওয়া লেগেছে দীপনের পারিবারিক জীবনেও। তাই বুধবার (১৬ আগস্ট) রাত পৌনে তিনটার দিকে মিতুর পোস্টের স্ক্রিনশট নিয়ে লম্বা স্ট্যাটাস দেন নির্মাতা।

জাহারা মিতুকে উদ্দেশ্য করে দীপন বলেছেন, এটা কী পোস্ট ভাই? এই পোস্টের ছবি ও লেখা মিলে কী দাঁড়ায়, সেটা কি তুমি বোঝো না মিতু? কমেন্ট দেখো, যা তুমি ডিলিটও করোনি। আর এদিকে অন্যদের বোঝাতে বোঝাতে আমার জীবন শেষ যে, জাহারা মিতুর সঙ্গে আমার কোনও (বিশেষ) সম্পর্ক নেই; বা দহরম-মহরম সম্পর্কও নেই, বরং খুব ফরমাল সম্পর্ক। একবার দুবার দেখা হয়েছে, তাও কোনও অনুষ্ঠানেই। অনেকে বিশ্বাস করে, অনেকেই করে না; খিক খিক করে হেসে বলে, ‘ভাই ছবি ও পোস্টের ভাষা তো অন্য ইঙ্গিত দেয়!’ আর পারিবারিক অশান্তির কথা তো না-ই বললাম, সেটা সবাই বুঝবে।”

 

দীর্ঘ পোস্টে দীপন এটুকু বোঝাতে চেয়েছেন, মিতুর সঙ্গে তার কোনও সম্পর্ক নেই। দীপনের পোস্টে মন্তব্য করে মিতু বলেছেন, ‘রাজ্য আমাদের পুরো বাংলাদেশের। হয়তো অর্থটাই ভুল বুঝেছেন। ব্যক্তিগত জীবনে কী প্যারায় আছেন, তা তো আমরা জানি না। তবে আমার এই পোস্টে আমার অজান্তে বৌদি কোনও কষ্ট পেয়ে থাকলে আমি দুঃখিত। আর স্ক্রিনশটের প্যাঁচের খেলা থেকে অনেক আগেই বের হয়ে এসেছি। এরা পারেই প্যাঁচ লাগাতে। এখন হয়তো দু-চারটা নিউজ হবে আবোল-তাবোল। এইতো।’

বুধবার (১৬ আগস্ট) দুপুর আড়াইটায় সোশ্যাল হ্যান্ডেলে সংযুক্তা বললেন, ‘নির্মাতা দীপংকর দীপন কার সঙ্গে মেশে, কী খায়, কী পরে, কোন দেশে যায়, আর কী কী করে বেড়ায়, আমি সেটা জানি না। আর কেন জানি না, এটা আমাদের, মানে আমার আর দীপনের একান্তই ব্যক্তিগত ব্যাপার। কিন্তু আমাকে নিজেদের দোষ ঢাকতে বলির পাঁঠা বানাবেন না। জাহারা মিতুকে আমি চিনিও না। কিন্তু তাকে আর দীপনকে নিয়ে কী হয়েছে, আমি সত্যিই জানতাম না। আমাকে দুজন সাংবাদিক জানিয়েছিলেন, আমি পাত্তাও দেইনি। প্রতিটি মানুষের ব্যক্তিগত জীবন আছে। দীপনেরও আছে, আমারও আছে। তাই এগুলো নিয়ে আমাদের বহু বহু দিন কোনও মাথাব্যথা নেই।’

দীপনের পোস্ট নিয়ে সংযুক্তার মন্তব্য এরকম, “ওই মেয়েকে (জাহারা মিতু) নিয়ে দীপনের স্ট্যাটাস দেখে বুঝলাম; তাকেও আশপাশের লোকজন অথবা তার এখনকার ‘একান্ত’ কেউ চাপ দিয়েছে আর তাই সে স্ট্যাটাস দিয়ে তার দোষ ফুরিয়েছেন। বলির বকরা বানিয়েছেন আমাকে। ঘর আর পারিবারিক জীবনের কথা বলে নিজেকে বিপদের বাইরে ভালো মানুষ সাজিয়ে রাখলেন; আরেকবার বিক্রি করলেন আমাকে!’’

তবে দীপংকর-সংযুক্তার এই ভার্চুয়াল পারিবারিক যুদ্ধে আর যুক্ত হননি জাহারা। এমনকি তার পোস্টটিও করে দিয়েছেন অনলি মি!

উল্টো দীপনকে লক্ষ্য করে বললেন, ‘আপনাকে ছবি থেকে ক্রপ করে দিলে ব্যাপারটা আপনার জন্য মারাত্মক অসম্মানের হতো। যেটা আমি চাইনি। আপনি আমার কাছে সম্মানীয়। তাই এখনও আপনাকে ক্রপ করে ফেলে না দিয়ে বরং অনলি মি করলাম।’