ঢাকা ০৯:৪৬ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::

জুমার দিন সূরা কাহাফ তেলাওয়াতের ফজিলত

নিজস্ব সংবাদ :

মুফতি ইমরানুল বারী সিরাজী

খতিব, পীর ইয়ামেনী জামে মসজিদ, গুলিস্তান, ঢাকা

জাবিয়া ইমরানা

মানিকনগর, মুগদা, ঢাকা

প্রশ্ন : জুমার দিন সূরা কাহাফ পড়ার ফজিলত কী? কখন পড়বে? জুমার নামাজের আগে? না, পরে?

উত্তর : জুমার দিন সূরা কাহাফ তেলাওয়াতের অনেক ফজিলত হাদিসে বর্ণিত হয়েছে। হজরত আবু সাইদ খুদরি (রা.) বলেন, প্রিয় নবি হজরত মুহাম্মদ (সা.) ইরশাদ করেন, যে ব্যক্তি জুমার দিন সূরা কাহাফ তেলাওয়াত করবে। এক জুমা থেকে আরেক জুমা পর্যন্ত তার জন্য বিশেষ জ্যোতি ও আলো হবে।

হজরত আলি (রা.) বলেন, যে ব্যক্তি জুমার দিন সূরা কাহাফ তেলাওয়াত করবে, সে ব্যক্তি পুরো সপ্তাহ সব ধরনের ফেতনা-ফ্যাসাদ থেকে নিরাপদ থাকবে। দাজ্জালের ফেতনা থেকেও নিরাপদ থাকবে।

জুমার দিন যে কোনো সময় সূরা কাহাফ পড়া যাবে। জুমার নামাজের আগেও পড়া যাবে, পরেও পড়া যাবে। সূরা কাহাফের তেলাওয়াতের ফজিলত জুমার দিনের সঙ্গে। জুমার নামাজের সঙ্গে নয়। তাই সূর্যাস্তের আগ পর্যন্ত যে কোনো সময় পড়া যাবে। এমনকি জুমার রাতে অর্থাৎ বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে পড়লেও এই ফজিলত অর্জন করা যাবে।

তথ্যসূত্র : মিশকাত শরিফ, খণ্ড : ১ পৃষ্ঠা : ১৭৯, হাদিস নং ২১১৬, তাফসিরে ইবনে কাসির খণ্ড : ৩ পৃষ্ঠা : ৭১, কিতাবুন নাওয়াজেল, খণ্ড : ২ পৃষ্ঠা : ৪৬৬।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

Dainik Renaissance

আমাদের ওয়েসাইটে আপনাকে স্বাগতম। আপনাদের আশে পাশের সকল সংবাদ দিয়ে আমাদের সহযোগীতা করুন
আপডেট সময় ১২:৪৮:২৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৫ অগাস্ট ২০২৩
৮৭ বার পড়া হয়েছে

জুমার দিন সূরা কাহাফ তেলাওয়াতের ফজিলত

আপডেট সময় ১২:৪৮:২৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৫ অগাস্ট ২০২৩

মুফতি ইমরানুল বারী সিরাজী

খতিব, পীর ইয়ামেনী জামে মসজিদ, গুলিস্তান, ঢাকা

জাবিয়া ইমরানা

মানিকনগর, মুগদা, ঢাকা

প্রশ্ন : জুমার দিন সূরা কাহাফ পড়ার ফজিলত কী? কখন পড়বে? জুমার নামাজের আগে? না, পরে?

উত্তর : জুমার দিন সূরা কাহাফ তেলাওয়াতের অনেক ফজিলত হাদিসে বর্ণিত হয়েছে। হজরত আবু সাইদ খুদরি (রা.) বলেন, প্রিয় নবি হজরত মুহাম্মদ (সা.) ইরশাদ করেন, যে ব্যক্তি জুমার দিন সূরা কাহাফ তেলাওয়াত করবে। এক জুমা থেকে আরেক জুমা পর্যন্ত তার জন্য বিশেষ জ্যোতি ও আলো হবে।

হজরত আলি (রা.) বলেন, যে ব্যক্তি জুমার দিন সূরা কাহাফ তেলাওয়াত করবে, সে ব্যক্তি পুরো সপ্তাহ সব ধরনের ফেতনা-ফ্যাসাদ থেকে নিরাপদ থাকবে। দাজ্জালের ফেতনা থেকেও নিরাপদ থাকবে।

জুমার দিন যে কোনো সময় সূরা কাহাফ পড়া যাবে। জুমার নামাজের আগেও পড়া যাবে, পরেও পড়া যাবে। সূরা কাহাফের তেলাওয়াতের ফজিলত জুমার দিনের সঙ্গে। জুমার নামাজের সঙ্গে নয়। তাই সূর্যাস্তের আগ পর্যন্ত যে কোনো সময় পড়া যাবে। এমনকি জুমার রাতে অর্থাৎ বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে পড়লেও এই ফজিলত অর্জন করা যাবে।

তথ্যসূত্র : মিশকাত শরিফ, খণ্ড : ১ পৃষ্ঠা : ১৭৯, হাদিস নং ২১১৬, তাফসিরে ইবনে কাসির খণ্ড : ৩ পৃষ্ঠা : ৭১, কিতাবুন নাওয়াজেল, খণ্ড : ২ পৃষ্ঠা : ৪৬৬।